আবারও চীনের বিরুদ্ধে হুঙ্কার ট্রাম্পের

মাঝে দুই দিন নীরব ছিলেন তিনি। সপ্তাহান্তে সংবাদ সম্মেলন করে করোনা সংক্রান্ত কোনও তথ্যও দেননি। সোমবার ফের ক্যামেরার সামনে আসেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। হোয়াইট হাউসে দাঁড়িয়ে স্বভাবসিদ্ধ ভঙ্গিতে বিতর্কিত মন্তব্যের ধারাবাহিকতা বজায় রাখেন। আবারও লক্ষ্যবস্তু করলেন চীনকে। হুঙ্কার দিলেন, তদন্ত শেষে বেইজিংকে পরিণতি ভোগ করতে হবে।   যুক্তরাষ্ট্রে করোনাভাইরাস ছড়াতে শুরু করার পর থেকেই চীনকে আক্রমণের লক্ষ্যবস্তু বানিয়েছেন ট্রাম্প। সোমবার তার মন্তব্য, “চীন চাইলে দেশের মধ্যেই সংক্রমণ আটকে রাখতে পারতো। গোটা বিশ্বে ছড়াতে দিতো না। কিন্তু চীন তা করেনি। আমরা খুব সিরিয়াস তদন্ত শুরু করেছি। চীনকে কৃতকর্মের ফল ভোগ করতে হবে।” এক সময় করোনাকে ‘চীনা ভাইরাস’ বলে দাবি করতেন তিনি। যার জেরে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এবং জাতিসংঘ তাকে সতর্কও করেছিল। এরপর ট্রাম্প অভিযোগ করেছিলেন, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা চীনের হয়ে কাজ করছে। যে কারণে প্রেসিডেন্টের নির্দেশে আপাতত ওই সংস্থাকে অর্থ দেওয়াও বন্ধ রেখেছে যুক্তরাষ্ট্র।  সোমবার আবার সেই প্রসঙ্গ তোলেন ট্রাম্প। তার অভিযোগ,  চীনের মূল এলাকা থেকে ভাইরাস যাতে ছড়িয়ে না পড়ে তার জন্য আরও অনেক ব্যবস্থা নেওয়া উচিত ছিল। সরাসরি না বললেও ট্রাম্পের ইঙ্গিতে স্পষ্ট, করোনা ভাইরাস ছড়ানোর জন্য তিনি বেইজিং-এর 'সক্রিয়' ভূমিকার দিকে আঙুল তুলছেন।

সর্বশেষ সংবাদ